Girl in a jacket

সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের ইন্তেকাল

0

সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতা মোহাম্মদ নাসিম ১৩ জুন শনিবার সকাল ১১ টা ১০ মিনিটে শ্যামলীতে একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধিন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭২ বছর বছর।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে বতর্মান পরিস্থিতি বিবেচনায় মোহাম্মদ নাসিমের জানাজা ও অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা সীমিত পরিসরে পালন করা হবে।

গতমাসের শেষদিকে মোহাম্মদ নাসিম করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছিলেন। শ্যামলীতে একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

এর কয়েকদিন পর তিনি অনেকটা সুস্থ হয়ে গেলেও ৫ই জুন শুক্রবার ব্রেইন স্ট্রোক হলে তার অবস্থার অবনতি হয়।

তারপর থেকে তার শারীরিক পরিস্থিতি সঙ্কটাপন্ন ছিলো। কয়েকদিন আগে তার করোনাভাইরাস পরীক্ষা করলে ফল নেগেটিভ আসে।

 রাজনীতির সঙ্গে মোহাম্মদ নাসিম সম্পৃক্ত হন ষাটের দশকে। শুরুর দিকে তিনি ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হলেও পরবর্তীতে ছাত্রলীগ করতে শুরু করেন। পাবনার এডওয়ার্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পাশের পর ঢাকার জগন্নাথ কলেজ থেকে (বর্তমানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়) তিনি রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি সম্পন্ন করেছিলেন।

১৯৭৫ সালে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারের হত্যাকাণ্ড ও জেলখানায় আরো তিন জাতীয় নেতার সঙ্গে তাঁর পিতা এম মনসুর আলী হত্যাকাণ্ডের পরে তিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে পুরোপুরি সম্পৃক্ত হয়ে ওঠেন।

মোহাম্মদ নাসিমের জন্ম হয়েছিল ১৯৪৮ সালের ২ এপ্রিল, সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলায়। তার পিতা ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ছিলেন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশে সরকারের মন্ত্রী, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশের তৃতীয় প্রধানমন্ত্রী।

মোহাম্মদ নাসিম সিরাজগঞ্জ-১ আসন (কাজীপুর ও সদর উপজেলার একাংশ) থেকে তিনি ছয়বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। আওয়ামী লীগের হুইপ থেকে শুরু করে বিভিন্ন সময় স্বরাষ্ট্র, ডাক ও টেলিযোগাযোগ, গৃহায়ন ও গণপূর্ত এবং সর্বশেষ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সর্বশেষ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম কমিটির সদস্য মোহাম্মদ নাসিম দলের মুখপাত্র হিসাবেও দায়িত্ব পালন করছিলেন।

সূত্র-বিবিসি বাংলা।

Share.

Comments are closed.