Girl in a jacket

ভালুকা পৌর নির্বাচনে নৌকা ও ধানের শীষের হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা

0

আসাদুজ্জামান ফজলু, দিগন্তবার্তা, ২৬ জানুয়ারীঃ-
ময়মনসিংহের ভালুকা পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দি¦তা করলেও নৌকা ও ধানের শীষ প্রার্থীর মাঝে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভবনা রয়েছে। তাই আগামী ৩০ জানুয়ারী নির্বাচনকে ঘিরে প্রার্থীরা প্রচারণা চরম ব্যস্ততায় সময় পাড় করছেন। পৌরবাসীও উৎসবের আমেজে মেতেছেন। গত ১০ জানুয়ারী প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে সাধারণ কাউন্সিলর, সংরক্ষিত কাউন্সিলর ও মেয়র পদে প্রতিদ্ব›িদ্ব প্রার্থীদের পক্ষের কর্মী, সমর্থক ও দলীয় নেতা-কর্মীরা চালিয়ে আসছেন নির্বাচনী কার্যক্রম। যদিও ধানের শীষের প্রার্থী সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেছেন, তার নির্বাচনী প্রচারণায় বিভিন্ন ধরণের বাধাসহ মাইক ভাঙচুরের কথা।
আ’লীগ মনোনিত প্রার্থী ও উপজেলা আ’লীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক বর্তমান মেয়র ডা. একেএম মেজবাহ্ উদ্দিন কাইয়ুম পর পর দুই বার মেয়র নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে পৌরবাসির নাগরিক সুযোগ সুবিধার মোটামুটি কাজ করলেও শুধুমাত্র কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ ছাড়া দলের সাথে তেমন ভালো সম্পর্ক না থাকার অভিযোগ অনেকেরই। তারপরও যেহেতু তৃতীয়বারের মতো তিনি নৌকা প্রতীক পেয়েছেন, তাই দলীয়ভাবে সকলেই তাকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
অপরদিকে বিএনপির মনোনিত প্রার্থী আলহাজ¦ মোঃ হাতেম খান দীর্ঘ দশ বছরের অধিক সময় ধরে মেয়র নির্বাচিত হওয়ার লক্ষ্যে পৌরবাসীর দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন, বিভিন্ন দুর্যোগ ও উৎসবে অসহায় ও দুস্থদের সাহায্য সহযোগিতা করে আসছেন। দলীয় ভাবেও রয়েছে তার শক্ত অবস্থান। তিনি ২০১৫ সনের নির্বাচনেও মেয়র প্রার্থী হিসেবে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে প্রতিদ্বন্ধীতা করেছেন। তবে এক ঘন্টা ভোটাভোটির পর সকাল ১০ টার দিকে কারচুপির অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ভোটবর্জর করেছিলেন। তাছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মো: সাইফুল ইসলাম সুজন নামে এক ব্যক্তি নারীকেল গাছ প্রতিক নিয়ে মেয়র পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন।
আ’লীগ মনোনিত প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র ডা. এ কে এম মেজবাহ্ উদ্দিন কাইয়ুম জানান, দল ও ভোটারের সমর্থন নিয়ে পর পর দুইবার মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর, অবহেলিত ভালুকা পৌরসভাকে আধুনিকায়ন ও নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। ভোটারদের সমর্থনে তৃতীয়বারের মতো আবার নির্বাচিত হতে পারলে পৌরবাসীর আধুনিক নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করার অসমাপ্ত কাজগুলো শেষ করার সুযোগ পাবো।
বিএনপির মনোনিত ধানের শীষের প্রার্থী আলহাজ¦ মোঃ হাতেম খান অবাধ, অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে বিজয়ী হওয়ার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, মেয়র নির্বাচিত হলে, ভালুকা পৌরসভা কে মাদকমুক্ত দেশের অন্যতম পৌরসভা গড়ে তুলার চেষ্টা করবো। তিনি পৌরবাসীর কল্যাণে নিরলস ভাবে কাজ করার প্রতিশ্রæতিও ব্যক্ত করেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনী প্রচারণায় বিভিন্ন ধরণের বাধা মোকাবেলা করতে হচ্ছে। পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ারর্ডে ধানের শীষের মাইক ভাঙচুর ও পোষ্টার ছিড়ে ফেলছে নৌকা প্রতিকের সমর্থকরা। তাছাড়া মোটরসাইকেল শোডাউন করে এমনকি বহিরাগতরা এসে পৌরবাসির মাঝে ভীতির পরিবেশ সৃষ্টি করা হচ্ছে।
নারীকেল গাছ প্রতিকের স্বতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম সুজন বলেন, আমার বাবা মরহুম ছফির উদ্দিন ফকির সারাজীবন আ’লীগ রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। আমার কোর কালো টাকা নেই। আমিও দীর্ঘদিন ধরে আ’লীগ রাজনীতির সাথে জড়িত। সুষ্ঠ ভোট হলে আমি বিজয়ী হবো বলে আশা করি।
উল্লেখ্য, আগামী ৩০ জানুয়ারী অনুষ্ঠেয় ভালুকা পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে তিনজন, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৮জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে মোট ৩২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধীতা করছেন এবং প্রতিটি কেন্দ্রেই ব্যালট এর মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ভালুকা পৌরসভায় মোট ভোটার রয়েছেন ২৫ হাজার ৪৪ জন। তার মাঝে পুরুষ ভোটার রয়েছেন, ১২ হাজার ৬৮২ ও নারী ভোটার রয়েছেন, ১২ হাজার ৩৬২ জন। মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১০ টি, ভোট কক্ষের সংখ্যা ৭২ টি এবং অস্থায়ী ভোট কক্ষের সংখ্যা রয়েছে তিনটি।

Share.

Comments are closed.