Girl in a jacket

ভালুকায় সরকারী রাস্তা খাল ও জমি দখলের অভিযোগ এক ফ্যাক্টরী কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে

0

স্টাফ রিপোর্টার, দিগন্তবার্তা, ৭ এপ্রিল:-

ময়মনসিংহের ভালুকায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কৃষকদের জমি ক্রয় না করেই জোরপূর্বক দখলে নিয়ে সীমানা প্রাচীর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে আমিরাত স্পিনিং মিলস লিমিটেড নামে একটি প্রস্তাবিত কোম্পানী কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। তাছাড়া সরকারী খাল ও রাস্তা দখলেরও অভিযোগ রয়েছে ওই মিলের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ধীতপুর ইউনিয়নের ধলিয়া দেয়ালিয়াপাড়া এলাকায়। এ ঘটনায় ভূক্তভোগি আব্দুর রশিদ ও হারুন নামে দুই ব্যক্তি আদালতের মাধ্যমে ওই জমির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।
স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভরাডোবা এলাকায় অবস্থিত মুলতাজিম গ্রæপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান আমিরাত স্পিনিং মিলস লিমিটেডের পক্ষে সম্প্রতি গভীর রাতে উপজেলার ধলিয়া দেয়ালিয়াপাড়া এলাকায় জমির মালিকদেরকে ঘরের ভিতরে আটকিয়ে রেখে ৪নম্বর ধীতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশরাফুল আলমের নেতৃত্বে সাদ্দাম, সোহেল, শামীম ও আমিরুলসহ অর্ধশতাধিক লোকজন দিয়ে সীমানা প্রচীর নির্মাণ কাজ শুরু করেন। ওই সময় জমির মালিক রেজিয়া খাতুন, রাবেয়া খাতুন ও হাজেরা খাতুন নির্মাণ কাজে বাঁধা দিলেও তাদের বাঁধা উপেক্ষা করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজ চালিয়ে যান। পরে ভূক্তভোগি পরিবারের পক্ষে জমির মালিক আব্দুর রশিদ রান্দিয়া ধলিয়া মৌজার বিআরএস দাগ ৮৭৯, ৮৮১ ও ৮৮৯ নম্বর দাগের জমির উপর ময়মনসিংহের বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আবেদন করলে বিজ্ঞ আদালত ভালুকা মডেল থানা পুলিশকে ওই জমির উপর ১৪৪ ধারা জারি করার নির্দেশ দেন। ভালুকা মডেল থানা পুলিশ শান্তি শৃংখলা বজায়া রাখার লক্ষ্যে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে ওই জমির উপর ২৩ আগস্ট/২০, ১৪৪ ধারা জারি করেন। কোম্পানির যে ভাবে জমির উপর সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করেছেন বিশাল ওই বাউন্ডারির ভিতরে আরো বেশ কয়েকজন নিরিহ কৃষকের জমি রয়েছে। কৃষকদের বাঁধা আমলে না নিয়েই জোরপূর্বক সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজ শুরু করেছে।
জমির মালিক আব্দুর রশিদ জানান, আমাদেরকে ঘরের ভিতরে আটকিয়ে রেখে চেয়ারম্যান আশরাফুল আলমের নেতৃত্বে সাদ্দাম, সোহেল, শামীম ও আমিরুলসহ অর্ধশতাধিক লোক দিয়ে সীমানা প্রচীর নির্মাণ শুরু করলে আমার বোনেরা বাঁধা দিতে গেলে তাদেরকে ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়। সিমাণাপ্রাচীরের ভেতরে তাদের প্রায় ৮০ লাখ টাকা মূল্যের ২৭ শতাংশ জমি রয়েছে বলে রেজিয়া খাতুন দাবি করেন।
মো: হারুন নামে অপর এক জমির মালিক জানান, ধীতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম ও ভরাডোবা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ আলম তরফদারের মাধ্যমে কোম্পানীকে জমি কিনে দিচ্ছেন। তাদের মাধ্যমেই কোম্পানীর মালিক মাসুদ ফকির তার কাছ থেকে ১০১ শতাংশ জমি ক্রয় করার শর্তে জনতা ব্যাংক ঢাকার দিলকুশা কর্পোরেট শাখার ৮৫ লাখ টাকার একটি চেক প্রদান করে সীমাণা প্রাচীর নির্মাণ কাজ করে স্থাপনা নির্মাণ শুরু করেছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে মাসুদ ফকিরের ওই শাখায় একাউন্ডে কোন টাকা নেই। বর্তমানে আমিও আমার জমির উপর আদালতের নিষেধাজ্ঞা জারি করিয়েছি।
স্থানীয় লোকজন অভিযোগ করেন, আমিরাত স্পিনিং মিলস লিমিটেড কর্তৃপক্ষ এলাকার এতিহ্যবাহি ভালুকজান খালটির একটি বিশাল অংশ জবর দখলে করে সীমাণাপ্রাচীর নির্মাণ করে ফেলেছেন। এতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে এলাকার ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়ার মিলের সামনে দিয়ে সরকারী যে রাস্তাটি রয়েছে, তারও কিছু অংশ দখল করে সিমাণাপ্রাচীর নির্মাণ করেছেন। রাস্তা দখলের অভিযোগে স্থানীয় লোকজন নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
ইউপি চেয়ারম্যান আশরফুল আলম জানান, জমি দখলের সাথে তার কোন সম্পর্ক নেই। মিল কর্তৃপক্ষ তাদের জমিতে তারা নিজেরাই সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করেছেন।
আমিরাত স্পিনিং মিলস লিমিটেডের মালিক মাসুদ ফকির হারুর নামে স্থানীয় এক ব্যক্তিকে জমি ক্রয়ের জন্য ৮৫ লাখ টাকার চেক দেয়ার কথা স্বীকার করে জানান, বর্তমানে তিনি আর্থিক সমস্যায় আছেন। ব্যাংক লোনের জন্য চেষ্টা করছেন, টাকা পেলেই তাকে তার পাওয়না মিটিয়ে দেয়া হবে।
ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মাহমুদুল ইসলাম জানান, জমির মালিকদের সাথে কোম্পানী কর্তৃপক্ষের বিরোধ থাকায় আদালতের নির্দেশে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি অবনতির বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

Share.

Comments are closed.