Girl in a jacket

ভালুকায় সদ্য প্রসূতিসহ মা ও কলেজ পড়ূয়া বোনকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা

0

ময়মনসিংহের ভালুকায় মামলা সংক্রান্ত বিরোধ ও গাছ থেকে জোরপূর্বক কাঠাল পেড়ে নেয়ার প্রতিবাদ করায় প্রতিপক্ষের হামলায় সদ্য প্রসূতিসহ তার বিধবা মা ও অনার্স পড়ূয়া বোনকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা। ঘটনাটি ঘটেছে ১৫ জুন সোমবার বিকেলে উপজেলার ডাকাতিয়া দক্ষিণপাড়া এলাকায়। এ ঘটনায় মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
লিখিত অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ডাকাতিয়া দক্ষিণপাড়ার মৃত শওকত আলীর বিধবা স্ত্রী সাহিদা আক্তারের সাথে পারিবারিক ও জমাজমি নিয়ে দেবর নজরুল ইসলামের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। এ নিয়ে আদালতে মামলাও চলমান আছে। ঘটনার দিন ১৫ জুন সোমবার বিকেলে নজরুলের নেতৃত্বে বিবাদীগণ পূর্বপরিকল্পিতভাবে দা, লাঠি, রড নিয়ে সাহিদার বসতঘরের সামনে থেকে জোড়পূর্বক কাঠাল পাড়তে যায়। এ সময় বাঁধা দিতে গেলে বিবাদীরা সাহিদার উপর লাঠিশোঠা নিয়ে হামলা করে এবং পিঠিয়ে পা ভেঙে দিলে তিনি মাটিতে পড়ে গিয়ে ডাক চিৎকার শুরু করেন। খোঁজ পেয়ে তার কলেজ পড়ূয়া মেয়ে সূবর্ণা আক্তার (২০) ও সদ্য সিজার করা প্রসূতি মেয়ে ছালমা আক্তার (২৪) ঘটনাস্থলে এলে বিবাদীরা তাদের উপরও হামলা করে সূবর্ণার হাত ভেঙে দেয় এবং ছালমার নাক ও মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় বিবাদীরা সাহিদা ও তার ছোট মেয়ে সূবর্ণার গলা থেকে দুই ভরি ওজনের দু’টি সোনার চেইন ছিনিয়ে নেয় এবং বসতঘর ডুকে সুকেইজ থেকে নগদ ৫৫ হাজার টাকা জোড় করে নিয়ে যায়। পরে তাদের ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।
আহত সাহিদা আক্তার (৪৬) জানান, তার স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে তাকে নিরিহ পেয়ে দেবর নজরুল ইসলাম পারিবারিক বিভিন্ন বিষয় ও জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নানাভাবে হয়রানী ও নির্যাতণ করে আসছে। এ নিয়ে আদালতে মামলাও চলমান আছে। ঘটনারদিন নজরুল লোকজন নিয়ে জোড়পূর্বক তার গাছের কাঠাল পাড়তে গেলে তিনি বাঁধা দেয়ায় লাঠি দিয়ে পিটিয়ে তার পা ভেঙে দেয় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে নিলাফুলা জখম করে। এমনকি গত ২০/২২ দিন আগে আমার বড় মেয়ে ছালমা আক্তার সিজারের মাধ্যমে জমজ দুটি সন্তানের মা হয়। তাকেও রেহাই দেয়া হয়নি। তার নাকসহ মাথা ফাটিয়ে দেয় ওরা এবং কলেজ পড়ূয়া ছোট মেয়ে সূবর্ণাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেয়া হয়।
এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য অভিযুক্ত নজরুলের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেও তাকে না পাওয়ায় তার মন্তব্য দেয়া সম্ভব হয়নি।
এ ঘটনায় আহত সাহিদা খাতুন বাদি হয়ে অভিযুক্ত দেবর নজরুল ইসলাম, মামুন মিয়া, নাজমুল ইসলাম, নাজমা বেগম, আন্না খাতুন ও মারিয়া খাতুনের নাম উল্লেখ করে ভালুকা মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
ভালুকা মডেল থানার এসআই রুহুল আমীন (২) জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share.

Comments are closed.