Girl in a jacket

ভালুকায় মাদরাসা ছাত্র হত্যা ঘটনায় গ্রেফতার ৬

0

স্টাফ রিপোর্টাার, দিগন্তবার্তাঃ-

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার জামিরদিয়া আইনুল উলুম দাখিল মাদরাসার ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র মো. রব্বানী হত্যা মামলায় দুই কিশোরসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে মডেল থানা পুলিশ। গত সোমবার বিকেল থেকে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার বারমাড়ি লক্ষীপুর গ্রামের (বর্তমান ঠিকানা ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের জামিরদিয়া) হারুন-অর-রশিদের ছেলে কারখানা শ্রমিক মো. সোহেল রানা (১৯), ত্রিশাল নয়া পাড়ার আবদুল মতিনের ছেলে সাব্বির হোসেন (১৯), উপজেলার দক্ষিণ হবিরবাড়ি হামিদের মোড়ের সুজন ইসলামের ছেলে মো: নাঈম (১৯), একই এলাকার আবদুল আজিজের ছেলে মামুন-অর-রশিদ (১৬), শাজাহানের ছেলে মো. পারভেজ (১৯) ও জামিরদিয়া গ্রামের আবদুল মালেকের ছেলে রাব্বি (১৩)।
গ্রেফতারকৃতদের মাঝে রাব্বি অষ্টম শ্রেণির ছাত্র এবং মামুন-অর-রশিদ ও মো. নাঈম দুজন মামাতো-ফুাফাতো ভাই বলে জানা গেছে। মঙ্গলবার তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করা হলে তারা রব্বানী হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি প্রদান করেন। পাওনা টাকা, প্রেমের বিষয়সহ বন্ধুদের মাঝে মতবিরোধের জের ধরেই ওই হত্যাকান্ড বলে জানা গেছে। মো. রাব্বানী হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভালুকা মডেল থানার এসআই ইকবাল হোসেন সাংবাদিকদের জানান।
এর আগে নিহত রব্বানীর বাবা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে গত সোমবার ছেলে হত্যার অভিযোগে ভালুকা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। তবে, ওই মামলায় কাউকে আসামি করা হয়নি। পরে পুলিশ অভিযান চালিয় ওই ৬ জনকে গ্রেফতার করে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ইকবাল হোসেন জানান, মাদরাসা ছাত্র রব্বানী হত্যা মামলায় প্রথমে স্থানীয় একটি কারখানা থেকে শ্রমিক রানাকে এবং তার স্বীকারোক্তিতে অন্যান্যদের গ্রেফতা করা হয়। ওই হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বেøড ও ভিকটিম রব্বানীর খোয়া যাওয়া মোবাইলটিও উদ্ধার করা হয়।
ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন বলেন, মাদরাসা ছাত্র রব্বানী হত্যা ঘটনা তদন্তে ৭ জনের নাম এসেছে। তাদের মাঝে ৬ জনকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আদালতে তারা সকলেই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত আছে।
উল্লেখ, গত রবিবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলার হাবিরবাড়ি ইউনিয়নের জামিরদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনে গলাকেটে হত্যা করা হয় জামিরদিয়া আইনুল উলুম দাখিল মাদরাসার ষষ্ঠ শ্রেণীল ছাত্র মো. রব্বানীকে (১২)। সে শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলার যোগানীয়া ইউনিয়নের কাপাসিয়া গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে। তারা জামিরদিয়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক এমদাদুল হক মাস্টারের বাড়িতে ভাড়ায় বসবাস করেন এবং বাবা মো. শফিকুল ইসলাম জামিরদিয়া মোড়ে রেডিও টেলিভিশনের মেরামতের কাজ করেন এবং মা শাহনাজ বেগম একটি পোষাক কারখানার শ্রমিক। রব্বানী ছিলো তাদের একমাত্র সন্তান।

Share.

Comments are closed.