Girl in a jacket

ভালুকায় বনবিভাগের জমিতে প্রভাবশালীর বহুতল ভবন নির্মাণের অভিযোগ

0

ময়মনসিংহের ভালুকায় বনবিভাগের জমিতে নির্মাণ হচ্ছে নুরুনন্নাহার নামে এক প্রভাবশারীর বহুতল ভবণ। ঘটনাটি উপজেলার হবিরবাড়ি মৌজার ৯ নম্বর দাগে সিডষ্টোর পশ্চিমবাজার তালুকদার পাড়ায়। তাছাড়া ওই মৌজার বিভিন্ন স্থানে একাধিক বসতবাড়ি নির্মাণ হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় বনবিভাগের অসাধূ ব্যক্তিদের মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে এসব বসতবাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার হবিরবাড়ি মৌজার ৯ নম্বর দাগে সিডষ্টোর পশ্চিমবাজার তালুকদার পাড়ায় জনৈক রমজান আলীর স্ত্রী নুরুনন্নাহার হবিরবাড়ি মৌজার ৯ নম্বর দাগে বনবিভাগের জমি দখলে নিয়ে চার ইউনিটের একটি চারতলা বহুতল ভবণ নির্মাণ করছেন। তাছাড়া একই মৌজার আমতলী এলাকায় আজাহারুলসহ বিভিন্ন দাগে বনবিভাগের জমি দখলে নিয়ে একের পর এক বসতবাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে।
অভিযোগ রয়েছে, বনবিভাগের হবিরবাড়ি বিটে দেওয়ান আলী বিট অফিসার হিসেবে যোগদান করার পর থেকে একের পর এক বসতবাড়ি নির্মাণ ও সীমাণা পিলার পুতে বিপুল পরিমান বনবিভাগের জমি দখলের পাঁয়তারা করা হচ্ছে। সম্প্রতি উপজেলার হবিরবাড়ি মৌজার ৬২০ ও ৬৪১ নম্বর দাগে স্থানীয় আবুল বাশার ওরফে বাশানের নেতৃত্বে একটি প্রভাবশালী ভূমি দালালচক্র বেশ কয়েকটি চালার চার পাশে সীমাণা পিলার পুঁতে বনবিভাগের প্রায় শতবিঘা জমি দখলের চেষ্টা চালায়। পরে খবর পেয়ে ভালুকা রেঞ্জের হবিরবাড়ি বিট কর্মকর্তা দেওয়ান আলীর নেতৃত্বে বনবিভাগের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে লোক দেখানো বেশ কয়েকটি পিলার ভেঙে গুঁড়িয়ে দেন। অভিযোগ রয়েছে, কেউ বাড়ি নির্মাণ বা বনবিভাগের জমি দখলে নিতে চাইলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বুঝানোর জন্য স্থানীয় বনবিভাগের অসাধূ ব্যক্তিরা প্রথমে কাজে বাঁধা দেন বা সামন্য স্থাপনা ভেঙে আসেন। পরে তাদের সাথে কথা পাকাপোক্ত করে পূণরায় কাজ শুরু করা হয়। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, এই পর্যন্ত কোন স্থাপনাটা নির্মাণের কাজ বাকি রয়েছে। যদি বনবিভাগের কতিপয় লোক দুর্নীতির সাথে জড়িত না থাকতো।


বনবিভাগের জমি দখলে নিয়ে বাড়ি নির্মাণকারী নুরুন্নাহারের স্বামী মো: রমজান আলী বাড়ি নির্মাণের কথা স্বীকার করে বলেন, ৯ নম্বর দাগে সব জমিই বনবিভাগের দাবিকৃত। তাই বলে কি কেউ বাড়ি নির্মাণে থেমে আছে?
হবিরবাড়ি বিটের বিট কর্মকর্তা দেওয়ান আলী জানান, খবর পেয়ে ৯ নম্বর দাগে লোক পাঠানো হয়েছে। ঘটনা সত্য হলে বাড়ি নির্মাণকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
ময়মনসিংহ (দক্ষিণ) জেলার সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) আবু ইউসুফ সাংবাদিকদের জানান, হবিরবাড়ি মৌজার ৯ নম্বর দাগে পুরোটাই আমাদের রিজার্ভ ফরেস্ট। কেউ অবৈধভাবে স্থাপনা বা বসতবাড়ি নির্মাণ করলে তার বিরুদ্ধে বন আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share.

Comments are closed.