Girl in a jacket

ভালুকায় টিনের বেড়া দিয়ে বনবিভাগের জমিতে বসতঘর নির্মাণের অভিযোগ

0

স্টাফ রিপোর্টার, দিগন্তবার্তা, ৮ জানুয়ারী:-

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার ধামশুর মৌজায় বনবিভাগের জমিতে একের পর এক বসতঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। আর বনবিভাগ বলছে, বিআরএস রেকর্ড দখলকারদের নামে আসায় কোন ব্যবস্থা নিতে পারছেন না। কিন্তু স্থানীয় লোকজন বলছেন, বনবিভাগের সাথে যোগসাজশ করেই এসব বাড়িঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। তাছাড়া স্থানীয় কনজিউমার নিটেক্স কর্তৃপক্ষ বনবিভাগের জমি দখলে নিয়ে তাদের উত্তর পাশে সীমাণা প্রাচীর নির্মাণ করেছেন বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।
খোঁজ নিয়ে এলাকাবাসির সাথে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার ধামশুর মৌজার ১১০৮ নম্বর দাগে কনজিউমার নিটেক্স ফ্যাক্টরীর উত্তর পাশে বনবিজ্ঞপ্তিত কয়েক একর জমি রয়েছে। কিন্তু স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তি ওসব জমি দখলে নিয়ে বা সম্পাদনের মাধ্যমে ক্রয় করে একের পর এক বসত বাড়ি ও ব্যবসাা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলছেন। ৮ জানুয়ারী শুক্রবার সরেজমিন এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, স্থানীয় সবুজ মিয়া বিশাল আকারের বসতবাড়ি নির্মাণ করেছেন এবং তার ভগ্নিপতি সুরুজ মিয়া চারপাশে টিনের বেড়া দিয়ে ৬/৭ টি রুমের বসতবাড়ি নির্মাণ করছেন। তাছাড়া ওই দাগে অন্তত ১০/১২ টি বসতবাড়ি ইতোমধ্যে নির্মাণ করা হয়েছে। সম্প্রতি স্থানীয় কনজিউমার নিটেক্স ফ্যাক্টরী কর্তৃপক্ষ একই দাগের কয়েক কোটি টাকা মূল্যের বনবিভাগের জমি দখলে নিয়ে তাদের উত্তরপাশের সীমাণা প্রাচীর নির্মাণ করেছেন।
স্থানীয় লোকজন জানান, কোম্পানীর সীমাণাপাচীর নির্মাণসহ এসব বাড়িঘর নির্মানে সরাসরি স্থানীয় বনবিভাগ জড়িত রয়েছেন। তারা জানান, উপর থেকে চাপ আসলে স্থানীয় বনবিভাগের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে সামান্য ভেঙে লোক দেখানো ব্যবস্থা নেয়। কিন্তু দু’একদিন পর দেখা যায়, রহস্যজনক ভাবে দখলকারীরা পূণরায় তাদের স্থাপনা ঠিক করে নেন।
এ ব্যাপারে ভালুকা রেঞ্জের হাজিরবাজার বিট কর্মকর্তা সাফেরুজ্জামান জানান, বর্তমান বিআরএস রেকর্ড দখলকারদের নামে আসায় তাদের পক্ষে স্থাপনা নির্মাণকারীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হচ্ছেনা।

Share.

Comments are closed.