Girl in a jacket

ভালুকায় জাতীয় শোক দিবসেও ফ্যাক্টরী খোলা!

0

স্টাফ রিপোর্টিার, দিগন্তবার্তাঃ-

১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫ তম শাহাদাত বার্ষিকীর দিনটি জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হয়েছে সারাদেশে। দিনটিতে সরকারি ছুটি। সরকারি-বেসরকারিসহ সব অফিস-আদালতের কার্যক্রম বন্ধ। তবে ভিন্নচিত্র দেখা গেছে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার বেশ কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠানে এবং দুপরের বিরতির সময়ে খুবই সতকর্তার সাথে মূল ফটক দিয়ে দু’চারজন করে শ্রমিক বের হতে দেখা গেছে।

তার মধ্যে উপজেলার মাস্টারবাড়ি ক্রাউন গামেন্ট ফ্যাক্টরী,আরিফ স্পিনিং মিল এবং পাড়াগাঁও এক্সিল্যান্ড সিরামিক্স লিমিটেড ছিল খোলা রাখা হয়। কারখানাগুলোতে জাতীয় শোক দিবসেও শ্রমিকদের ভাগ্যে জুটেনি ছুটি। শ্রমিকেরা বাধ্য হয়ে অন্যসব দিনের মতো কাজে এসেছেন। তারা অংশ গ্রহণ করতে পারেনি জাতির জনকের শোক দিবসের মিলাদেও। তেমনি একাই এলাকার আরিফ স্পিনিং মিলের স্পিনিং ও নিটিং সেকশনে প্রায় দুই হাজার শ্রমিক ও পাশের পাড়াগাঁও এলাকায় অবস্থিত এক্সিলেন্ট সিরমিক্সেও একই ভাবে কারখানা খোলা রেখে ৩০০ শ্রমিক দিয়ে তাদের উৎপাদন কাজ অব্যাহত রেখেছেন।

শ্রমিকেরা জানান, অন্যসব দিনের মতো ১৫ আগস্ট শনিবার সকালেও তারা কারখানায় আসতে বাধ্য হয়েছেন। এর আগে কর্তৃপক্ষ তাদের মৌখিক নির্দেশ দিয়েছেন কারখানায় যথারীতি উপস্থিত থাকার জন্য। উপস্থিত না থাকলে বেতন বোনাস কাটা যাবে। তাই তারা হৃদয়ে শোকের গভীর ক্ষত নিয়ে পেটের দায়ে কাজে আসতে বাধ্য হয়েছেন।

তারা আরো জানান যে, জাতির পিতা এই দেশ সৃষ্টি করে গেলেন তার শাহাদাত বার্ষিকীতে আমরা জাতির পিতার আত্মার শান্তির জন্য মিলাদ পড়ারও সুযোগ পেলাম না।

এ বিষয়ে ক্রাউন গামেন্টের অ্যাডমিন ম্যানেজার জাকারিয়া সোহেল কারখানা খোলা রাখার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন,সিমিত আকারে কারখানা খোলা রাখা হয়েছে শুধু শিপমেন্টের জন্য। তানা হলে বহু ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয় কারখানা মালিকের। তিনি বলেন, ৮ হাজার শ্রমিকের মাঝে মাত্র ৪০০ শ্রমিক দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে।

আরিফ টেক্সটাইল মিলের অ্যাডমিন ম্যানেজার কবির উদ্দিন বিপুল জানান, তাদের কারখানা বন্ধ রয়েছে। তবে ইলেক্ট্রিক শাখায় কিছু শ্রমিক কাজ করছেন।

এক্সিলেন্ট সিরামিক্স কারখানার অ্যাডমিন ম্যানেজার (এইচআর ) মাহবুল আলম তাদের কারখানা খোলা রাখার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন,কারখানায় মোট ৫০০ শ্রমিক রয়েছে। তবে বন্ধের দিনে শতাধিক শ্রমিক দিয়ে কারখানার নরমাল কাজগুলো চলমান আছে।     

ভালুকা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মাসুদ কামালকে বিষয়টি অবগত করলে তিনি বলেন, এই বিষয়টি আমি নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছিনা। তবে বিষয়টি নিয়ে কলকারখানা ডিআইজির সাথে কথা বলতে পারেন। ময়মনসিংহ শিল্প জোনের ডিআইজি রাজিব ঘোষ জানান, জাতীয় শোক দিবসে সকল কলকারখানা বন্ধা রাখার নিয়ম রয়েছে। তবে কেউ নিয়ম ভঙ্গ করে কারখানা চালু রাখলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share.

Comments are closed.