Girl in a jacket

ভালুকায় চুরাই স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা উদ্ধার : দুই স্বর্ণ ব্যবসায়ীসহ আটক ৩

0

স্টাফ রিপোর্টার, দিগন্তবার্তাঃ-
ময়মনসিংহের ভালুকায় সিদ কেটে ঘর থেকে চুরি হয়ে যাওয়া আড়াই লাখ টাকা ও ৭ ভরি স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুই স্বর্ণব্যবসায়ীসহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। ২৮ অক্টোবর বুধবার ভোররাত থেকে দুপুর পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে এসব মালামাল ও অভিযুক্ত ব্যক্তিদের আটক করে মডেল থানা পুলিশ।
থানা সূত্রে জানা যায়, গত ২৫ অক্টোবর রাতে উপজেলার বাটাজোর গ্রামের মৃত এলাহী সেখের ছেলে সানোয়ার হোসেনের বাড়ি থেকে সিদ কেটে ১০ ভরি স্বর্ণ ও নগদ ৩ লাখ ৭ হাজার টাকাসহ মালামাল চুরি করে নিয়ে যায় একটি সঙ্ঘবদ্ধ চোরেরদল। এ সময় বাড়ির লোকজন ঘুমিয়ে ছিলেন। পরে ২৭ অক্টোবর বাড়ি মালিক বাদি হয়ে অজ্ঞাত আসামীদের নামে ভালুকা মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। বুধবার ভোরে ভালুকা মডেল থানার এসআই নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার হাজিরবাজার আখালিয়া পাড়ার জমির উদ্দিনের ছেলে ফারুক হোসেনকে (২৮) হাজিরবাজার এলাকা থেকে আটক করেন। পরে তার স্বীকারোক্তিতে দুপুরে উপজেলার সিডষ্টোরবাজার থেকে বিসমিল্লাহ জুয়েলারীর মালিক কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার ভাটিয়া মীর পাড়ার মৃত নজরুল ইসলামের ছেলে আশিক মীরকে (২৫) ও ভালুকা গফরগাঁও রোডস্থ শিমুলতলা সরকার টাওয়ার্সের স্বর্ণ ব্যবসায়ী আপন জুয়েলার্সের মালিক ভালুকা পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের যশরা কর্মকারের ছেলে শ্যামল কর্মকারকে (২৮) আটক করা হয়।
স্থানীয় লোকজন জানান, আপন জুয়েলার্সের মালিক রতন কর্মকার এর আগেও একই অভিযোগে পুলিশ থানায় নিয়ে গিয়েছিলো। পরে বিভিন্ন কৌশলে ছাড়া পান। রতন কর্মকারের বিরুদ্ধে চুরাই স্বর্ণালঙ্কার কম দামে কিনে বেশি দামে বিক্রি অভিযোগ বহুদিনের।
ভালুকা মডেল থানার এসআই নজরুল ইসলাম জানান, সরকার টাওয়ার্সের স্বর্ণ ব্যবসায়ী মর্ডাণ জুয়েলার্স থেকে ৭ ভরি চুরাই স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় জুয়েলার্সের মালিক রতন কর্মকার পালিয়ে যাওয়ায় এর সাথে জড়িত সন্দেহে তার ভাই আপন জুয়েলার্সের মালিক শ্যামল কর্মকারকে আটক করা হয়। অপরদিকে মামলার অন্যতম আসামী ফারুকের কাছ থেকে আড়ই লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে এবং অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।

Share.

Comments are closed.