Girl in a jacket

ভালুকায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও সামাজিক দুরত্ব মানা হচ্ছেনা

0

ময়মনসিংহের ভালুকায় একদিনে ডাক্তার, পুলিশ, শিক্ষিকা ও পোষাক শ্রমিকসহ নতুন করে আরো ১৫ জনসহ মোট ৩৯ জন করোনা আক্রান্ত হলেও সামাজিক দুরত্ব মানছেন না পরিবহণ সেক্টরের লোকজনসহ সাধারণ জনগণ। সিএনজি স্টেশন থেকে গ্যাস আনতে যাওয়ার সময় অটোর টায়ার কাটাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় অটোচলকরা হাইওয়ে পুলিশকে আটকে রাখা ও তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামলে খোদ উপজেলা চেয়ারম্যান আন্দোলন থামাতে মাঠে নামতে হয়েছে। তবে সামাজিক দুরত্বের তোয়াক্কা করছেনা কেউ। ২৯ মে শুক্রবার উপজেলার সিডষ্টোরবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা যায়, মহাসড়কে সিএনজি চালিত অটোরিক্সা ও ব্যাটারীচালিত তিন চাক্কার যানবাহন চলাচলে সরকারীভাবে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও ভালুকার সর্বত্রই এই নিয়মের তোয়াক্কা করছেনা কেউই। এতে কিছু অসাধূ পুলিশেরও সুবিধে হচ্ছে। দু’চারটা করে এসব যানবাহন ধরে নিয়ে টাকা আদায়ে হাইওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে সর্বত্রই। তাছাড়া কেউ টাকা দিতে অস্বীকার করায় যানবাহনের চাকা কেটে দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে। এরই জের হিসেবে শুক্রবার দুপুরে উপজেলার সিডষ্টোর বাজার এলাকায় অটোরিক্সার চাকা কাটাকে কেন্দ্র করে শতশত অটো চালক মহাসড়কে নেমে আসে এবং কতক হাইওয়ে পুলিশকে আটকে রাখে। এমনকি তাদের বিরুদ্ধে আন্দোনে নামার চেষ্টা করে। ঘটনার খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালম আজাদ ঘটনাস্থলে গিয়ে কেটে ফেলা অটোচলককে চাকা কিনে দেয়ার আস্বাস দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে করোনার এই দু:সময়ে সামাজিক নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্ব দেয়া হয়নি।

চালকরা জানান, করোনার কারণে তাদের ঘরে তেমন খাবার নেই। বাধ্য হয়ে তারা রাস্তায় নামতে বাধ্য হয়েছেন। কিন্তু হাইওয়ে পুলিশ সিএনজি স্টেশনে গ্যাস আনতেও বাঁধা সৃষ্টি করছেন। তারা সুযোগ পেলেই গাড়ির চাকা কেটে দিচ্ছেন। তাছাড়া আটকে রেখে তাদের কাছে অনৈতিক দিাবিও করা হচ্ছে। এমনকি টাকার বিনিময়ে অনেককেই তাদের অটোরিক্সা ছাড়িয়ে আনতে হয়েছে।
ভালুকার ভরাডেবা হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ উযায়ের আল মাহমুদ আদনান জানান, সিডস্টোর বাসস্যান্ড এলাকায় সাড়িবদ্ধভাবে অটোরিক্সা রাখার ব্যাপারে বার বার নিষেধাজ্ঞা সত্বেও তা মানছেনা চালকরা। এ ব্যাপারে হাইওয়ে পুলিশ চালকদের উপর চাপ সৃুষ্টি করলে ওরা জড়ো হওয়ার চেষ্টা করে। পরে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালম আজাদ জানান, সিএনজি চালিত অটোরিক্সায় গ্যাস আনতে যাওয়া অবস্থায় অটোর চাকা কেটে দেয় হাইওয়ে পুলিশ। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে চালকরা হাইওয়ে পুলিশকে আটকে রাখে, এমন সংবাদ পেয়ে পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে ছুটে যাই এবং অটোচলককে চাকা কিনে দেয়ার আস্বাস দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি।

Share.

Comments are closed.