Girl in a jacket

ভালুকার লাউতি খালটি প্রভাবশালীদের কালোথাবায় ভরাট ও দখল হয়ে যাচ্ছে!

0

স্টাফ রিপোর্টার, দিগন্তবার্তাঃ-

ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার শিল্পাঞ্চল হবিরবাড়ি এলাকার উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ঐতিয্যবাহি লাউতি খালটি প্রভাবশালীদের কালোথাবায় দিন দিন ভরাট হয়ে যাচ্ছে। পরিবেশ অধিদপ্তর ও স্থানীয় প্রশাসনের রহস্যজনক নিরবতায় স্থাণীয়ভাবে আন্দোলন ও প্রতিবাদ করলেও বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠানের অসাধূ মালিক ও প্রভাবশালীরা আইন অমান্য করে বিভিন্ন স্থানে ভরাট করে খালটি গ্রাস করে চলেছেন।
সরেজমিন স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জান গেছে, দীর্ঘদিন ধরে লাউতি খালটির উপর চলছে চরম অত্যাচার। এক সময় এই লাউতি খালটিকে বলা হতো লাউতি নদী। আর এই নদী দিয়ে চলতো পাল তুলা নৌকা। তাছাড়া এই নদী বা খাল থেকে মাছ শিকার করে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে ও বাজারে বিক্রি করে এলাকার শত শত পরিবার তাদের জীবিকা নির্বাহ করতো। কিন্তু কালের অবর্তে খালটি দুষ্ট লোকদের খপ্পরে পড়ে বিলিন হতে চলেছে। বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের অসাধূ ব্যক্তিরা যার যার সুবিধা মতো খালটির বিভিন্ন অংশে ভরাট করে ফেলায় বর্তমানে সরু নালায় পরিনত হয়েছে।
স্থাণীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিন খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, পাড়াগাঁও মৌজায় অবস্থিত এ্যাক্সিল্যান্ড সিরামিক্স লিমিটেড নামে শিল্পপ্রতিষ্ঠান তার পূর্ব অংশে খালের একাংশ দখলে নিয়ে সীমাণাপ্রাচীর নির্মাণ করছেন। তাছাড়া উজানে জামিরদিয়া, মাষ্টারবাড়ি এলাকায় স্কয়ার ফ্যাশনসহ বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠানের মালিকরা বিভিণœ অংশ ভরাট করে সরু খালে রুপ দিতে চলেছে।
স্থাণীয় মেম্বার জহিরুল হক বিল্লাল জানান, আমরা ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে বহুবার প্রতিবাদ ও চেষ্টা করেছি লাউতি খালটি রক্ষা করার জন্য কিন্তু রহস্যজনক ভাবে অসাধূ শিল্প মালিকরা তাদের ভরাট কাজ অব্যাহত রেখেছে।
এ্যাক্সিল্যান্ড সিরামিক্স লিমিটেডের অ্যাডমিন ম্যানেজার মনির হোসেন জানান, কোম্পানী কর্তৃপক্ষ নিজস্ব জমিতেই গ্যাস লাইন নেয়ার জন্য সীমাণা পিলার স্থাপন করছেন।
স্থাণীয় ইউপি চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ বাচ্চু জানান, ঐতিয্যবাহি লাউতি খালটি রক্ষার জন্য তিনি অনেকদিন ধরেই এলাকাবাসিকে সাথে নিয়ে আন্দোলন করে আসছেন।

Share.

Comments are closed.