Girl in a jacket

ভালুকার পল্লীতে রাস্তার কার্পেটিং কাজে অনিয়মের অভিযোগ

0

আসাদুজ্জামান ফজলুঃ-

ময়মনসিংহের ভালুকায় এলজিইডি মন্ত্রণালয়ের অধিনে একটি রাস্তার কার্পেটিং কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের অসাধূ ব্যক্তিদের যোগসাজশে নিন্মমানের কাজ করা হচ্ছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। ঘটনাটি উপজেলার হবিরবাড়ি ইউনিয়নের মনোহরপুর গ্রামে।
সরেজমিন ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার জামিরদিয়া নোয়াপাড়া মোড় থেকে মনোহরপুর মজিদ আকন্দের বাড়ি পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়কের কার্পেটিং কাজের জন্য এলজিইডি মন্ত্রণালয় ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে এক কোটি ১১ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। ময়মনসিংহের মহিবুল নামে এক ঠিকাদার কাজটি কার্যাদেশ পেলেও সাব ঠিকাদার হিসেবে কাজ করছেন শ্রীপুর উপজেলার জনৈক মাসুদ নামে এক ব্যক্তি। স্থানীয় লোকজন জানান, টেন্ডারের চার বছর অতিক্রম হলেও রাস্তার কাজ অর্ধেকও শেষ করতে পারেনি ঠিকাদার। তাছাড়া কার্পেটিং কাজে সিডিউল অনুযায়ী কাজ হচ্ছেনা। রাস্তায় দেয়া ইটের সুরকি ছিলো খুবই নিন্মমানের এবং দীর্ঘদিন ফেলে রেখে ধুলোবালিতে একাকার ছিলো। পরিষ্কার না করেই নামকাওয়াস্তে ঢালাইয়ের কাজ করা হচ্ছে। রাস্তার প্রস্থ ফিট হওয়ার কথা থাকলেও কোন কোন স্থানে ৯ ফুট করা হচ্ছে। তাছাড়া ঢালায়ের কাজে ব্যবহৃত মালামালের পরিমাণ কম দেয়া ও থিকনেছ সিডিউলমতো করা হচ্ছেনা। মনোহরপুর আকন্দপাড়া মোড়ে গিয়ে দেখা গেছে, কোন কোন স্থানে ঘষা দিতেই কার্পের্টিং উঠে যাচ্ছে এবং এবরো থেবরো অবস্থা। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, যে ভাবে সিডিউল বর্হিভূত কাজ করা হচ্ছে, তাতে এক বছর যেতে না যেতেই কার্পের্টিং উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হবে।
এ ব্যাপারে সাব ঠিকাদার মাসুদ জানান, কাজটি অনেক পুরনো। উপজেলা সাব এ্যাসিস্টেন্ট ইঞ্জিনিয়ার ইন্দু ভূষণ বিশ্বাসের তত্ত¡াবদানে কাজটি করা হচ্ছে। তবে কোন অনিয়ম হচ্ছেনা বলে তিনি দাবি করেন।
এ ব্যাপারে জানতে উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের মোবাইল নম্বরে বার বার চেষ্টা করলেও রিসিভ না করায় তার মন্তব্য দেয়া সম্ভব হয়নি।

Share.

Comments are closed.