Girl in a jacket

পশ্চিমবঙ্গ-উড়িষ্যার ‘আরও কাছে’ ঘূর্ণিঝড় আম্পান

0

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ‘সুপার সাইক্লোন’ আম্পান ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও উড়িষ্যার আরও কাছে চলে এসেছে।

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এটি উড়িষ্যার পারাদ্বীপ থেকে মাত্র ৫২০ কিলোমিটার এবং পশ্চিমবঙ্গের দিঘা থেকে ৬৭০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছিল বলে জানিয়েছে আনন্দবাজার।

একই সময়ে ঝড়টি ছিল বাংলাদেশের পটুয়াখালীর খেপুপাড়া থেকে ৮০০ কিলোমিটার দূরে।

বঙ্গোপসাগরের জানা ইতিহাসে আম্পানকে দ্বিতীয় ‘সুপার সাইক্লোন’ হিসেবে ধরা হচ্ছে। আগেরটি ছিল ১৯৯৯ সালের উড়িষ্যা সাইক্লোন। ২০০৭ সালে আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড় সিডরের চেয়েও আমপানের শক্তি এখন বেশি বলে আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন।

ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর পশ্চিমবঙ্গ ও উত্তর উড়িষ্যায় নতুন করে‘সাইক্লোন সতর্কতা’ জারি করেছে।

মঙ্গলবার ভোরের দিকে ঝড়টি পারাদ্বীপ থেকে ৫২০ কিলোমিটার দক্ষিণে, দিঘা থেকে ৬৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে এবং বাংলাদেশের খেপুপাড়া থেকে ৮০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে ছিল বলে জানিয়েছে তারা।

স্থলভাগে আছড়ে পড়ার সময় এটি ঘণ্টায় ১৫৫ থেকে সর্বোচ্চ ১৮০ কিলোমিটার বেগে আছড়ে পড়তে পারে বলে আবহাওয়াবিদরা অনুমান করছেন। ওই সময় উপকূলবর্তী এলাকায় প্রবল জলোচ্ছ্বাসও দেখা দিতে পারে, বলেছেন তারা।

আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়ার পর আম্পানের গতিমুখ উত্তর-পশ্চিম দিকে থাকলেও পরে তা পশ্চিবঙ্গের দিকে বাঁক নেয়।

শক্তি বাড়িয়ে সোমবার এটি ‘সুপার সাইক্লোনে’ পরিণত হয়। মঙ্গলবার কিছুটা শক্তি হারালেও এখনও তা ‘অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের’ রূপেই আছে। পরের দিকে এটি আরও শক্তি হারিয়ে ‘প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে’ পরিণত হতে পারে।

ঝড়টি শেষ পর্যন্ত কোথায় আঘাত হানবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা থাকলেও এর প্রভাবে পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ, কাকদ্বীপ ও সুন্দরবন ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বলে ভারতীয় আবহাওয়াবিদরা সতর্ক করেছেন।

আম্পানের প্রভাবে বুধবার পশ্চিম মেদিনীপুর, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা, হাওড়া, হুগলি ও কলকাতায় তুমুল বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে মালদহ, উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুরে।

৪ থেকে ৬ মিটার উঁচু জলোচ্ছ্বাসের কারণে উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণার নিচু এলাকাগুলো প্লাবিত হতে পারে বলেও সতর্ক করা হয়েছে।

Share.

Comments are closed.