Girl in a jacket

নতুন অধ‌্যায় শুরু মহাকাশে

0
মার্কিন মহাকাশযান নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্পেসএক্সের একটি রকেটে করে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠান নাসার দুজন নভোচারী গতকাল শনিবার আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে যাত্রা শুরু করেছেন। কোনো ব্যক্তিমালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের মহাকাশযানে নভোচারী পাঠানোর ঘটনা এটা্ই প্রথম। এর মধ্যে দিয়ে মহাকাশ যাত্রার ইতিহাসে নতুন অধ্যায় শুরু হলো।

শনিবার ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টারের ৩৯এ প্যাড থেকে এটি যাত্রা করে। গত এক দশকে নভোচারী নিয়ে আমেরিকার মাটি থেকে এটি প্রথম মহাকাশ যাত্রা। ফ্যালকন ৯ রকেটে যে দুজন নভোচারী রয়েছেন তাঁরা হলেন, রবার্ট বেনকেন ও ডগলাস হার্লে।

স্থানীয় সময় দুপুর ৩ টা ২২ মিনিটে ক্যালিফোর্নিয়ার স্পেস এক্স মিশন কন্ট্রোলে মিশন কমান্ডার হার্লে বলেন, ‘লেটস লাইট দ্য ক্যান্ডেল।’ মহাকাশ স্টেশনে পৌঁছাতে ১৯ ঘণ্টা লাগবে।

স্পেস এক্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইলন মাস্ক বলেন, ‘আমার ও স্পেসএক্সের সবার একটা স্বপ্ন পূরণ হলো।

মিশনটিকে বলা হচ্ছে ‘ডেমো-২’। মহাকাশযাত্রার ক্ষেত্র এ ঘটনার মাধ্যমে সরকারি আধিপত্যের শেষ হলো। নিয়মিত যাত্রী নিয়ে মহাকাশযাত্রার আগে স্পেস এক্সের ক্রু ড্রাগন ক্যাপসুলটি এর মাধ্যমে নাসার সনদ পাবে। তার আগে এটাই এর শেষ পরীক্ষামূলক যাত্রা।

বেনকেন (৪৯) ও হার্লে (৫৩) সাবেক মিলিটারি টেস্ট পাইলট হিসেবে ২০০০ সালে নাসায় যোগ দেন। তাঁরা আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে নভোচারী ক্রিস ক্যাসিডি ও রাশিয়ান নভোচারী অ্যানাতোলি ইভানিশিন এবং ইভান ভাগনারের সঙ্গে যোগ দেবেন। তাঁরা স্পেস স্টেশন ক্রুদের সঙ্গে গবেষণা এবং অন্যান্য কাজ পরিচালনা করার পাশাপাশি ক্রু ড্রাগনের ওপর পরীক্ষা করবেন।

এর আগে মার্কিন বিজ্ঞান সাময়িকী ‘নেচার’ জানায়, স্পেসএক্সের মহাকাশযান পাঠানোর মধ্য দিয়ে প্রায় এক দশক পর প্রথম মার্কিন নভোচারীদের পাঠানোর ঘটনা হিসেবে চিহ্নিত হবে। ২০১১ সালে স্পেস শাটল বন্ধ হয়ে যায়। এরপর থেকে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে নভোচারী পাঠাতে অন্যান্য মহাকাশ গবেষণা প্রতিষ্ঠানের মতো যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল অ্যারোনাটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (নাসা) রাশিয়ান সয়ুজ যানের ওপর নির্ভর করে আসছে, যা ষাটের দশকে নকশা করা হয়েছিল।

গত বছর থেকেই স্পেসএক্সের ‘ক্রু ড্রাগন’ ক্যাপসুল আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে কার্গো আনা–নেওয়ার কাজ করছে।

নাসা ও স্পেসএক্স খারাপ আবহাওয়ার কারণে বুধবার ফ্লোরিডার নাসার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে দুই নভোচারীর মহাকাশ যাত্রা স্থগিত করেছিল।

সূত্র – প্রথম আলো

Share.

Comments are closed.