Girl in a jacket

ত্রিশালে সরকারী গাছ কর্তনের অভিযোগ

0

জহিরুল কাদের কবীর, ত্রিশাল-
ত্রিশাল উপজেলার হরিরামপুর ইউনিয়নে সরকারী জায়গা থেকে গাছ কর্তনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গাছ কাটার সাথে সাথেই উপজেলা ভূমি অফিসে অভিযোগ দিলে ইউনিয়ন ভূমি অফিসের মাধ্যমে গাছ জব্দ করা হয়। জব্দকৃত গাছ ৮মাস ধরে পড়ে থাকলেও প্রশাসন কোন ব্যবস্থা নেয়নি। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও এলাকাবাসীর দাবী এঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা না নিলে দূবৃর্ত্তদের হাত থেকে সরকরী সম্পত্তি সংরক্ষণ করা সম্ভব হবেনা।
জানা গেছে, উপজেলার হরিরামপুর ইউনিয়নের রায়েরগ্রাম মৌজার নিঘোরকান্দা গ্রামের হারবার বন্দ নামক স্থানের সরকারী খাস জমিতে প্রায় ১লক্ষাধিক টাকার ৪/৫টি রেন্ট্রি গাছ ছিল। অভিযোগ উঠেছে পাশ্ববতী (রোজ ব্রিকস) ইটভাটার মালিক মোঃ রমজান আলী প্রায় ৮মাস পূর্বে রেন্ট্রি গাছগুলি কেটে নিজে হস্তগত করতে চেয়েছিল। কিন্তু স্থানীয় লোকজন গাছ কাটার বিষয়ে তাৎক্ষনিক উপজেলা ভূমি অফিসকে অবগত করে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে হরিরামপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহাকারী কর্মকর্তা মাসুদ রানা ও অফিস সহায়ক মোঃ তমিজ উদ্দিন গত ১২ মার্চ ২০২০খ্রীঃ কর্তনকৃত গাছ নিতে বাধা দেয় এবং জব্দ করে। জব্দকৃত গাছ প্রায় ৮মাস ধরে পরে থাকলেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন। স্থানীয় লোকজন জানান, রমজান আলী দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে সরকারী জমি, গাছপালা ও পুকুর ভোগ দখল করে আসলেও তার বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থা নেয়নি প্রশাসন। তদন্ত সাপেক্ষে রমজান আলীর বিচার দাবী করেন এলাকাবাসী।
অভিযুক্ত মোঃ রমজান আলী জানান, আমি গাছ কর্তন করার পর নায়েব সাব বাধা দেয়, বাধা দেয়ায় কর্তনকৃত গাছ আমি নেয়নি।
হরিরামপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাঈদ অভিযোগ করে বলেন, রমজান আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলেও প্রশাসন কোন ব্যাবস্থা নেয়না। সে অনেক শক্তিশালী, ইউনিয়ন পরিষদ থেকেও তার বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থা নেয়া যাচ্ছেনা।
ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আমি বিষয়টি আগে জানতাম না, এখন যেহেতু জানতে পেরেছি তদন্ত সাপেক্ষে যথাযত ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Share.

Comments are closed.