Girl in a jacket

ত্রিশালে বাবা হত্যার অভিযোগে চারদিন পর নেত্রকোনা থেকে ছেলেকে গ্রেফতার

0

ময়মনসিংহের ত্রিশালে পারিবারিক কলহের জেরে কুপিয়ে ও গলা কেটে আইয়ূব আলী শেখকে (৭৫) হত্যাকারী মামলার আসামী বখাটে ছেলে এনামুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ত্রিশাল থানা পুলিশ সোমবার সন্ধ্যায় নেত্রকোনা শহর থেকে খুনের চারদিন পর তাকে গ্রেফতার করে। পরে মঙ্গলবার দুপুরে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়।
স্থানীয় সূত্র ও ঘটনার বিবরণে জানা যায়, উপজেলার গোপালপুর গ্রামের আইয়ূব আলী শেখের চার ছেলে ও পাঁচ মেয়ে। ময়মনসিংহ পলিটেকনিক্যাল কলেজ থেকে ডিপ্লোমা পাশ করে বাড়িতে শুধু এনামুল থাকতো। এনামুলের বখাটেপনার কারণে এবং ওর ভয়ে বাবা ও মা ছোট ছেলে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের ওয়ার্ড বয় নাজমুলের সাথেই থাকতো। মাঝে মধ্যে গ্রামের বাড়িতে গেলে প্রতিবেশিদের বাড়িতে রাত্রি যাপন করে বাড়ির খোঁজ খবর নিয়ে আবার চলে যেতেন আইয়ুব আলী। এনামুল বেকার থাকায় টাকার জন্য এবং বড় ছেলে খাইরুলকে জমি লেখে দেয়ার কারণে প্রায়ই বাবার সাথে এনামুলের কথা কাটাকাটি হতো। এমনকি এর আগেও এনামুল তার বাবাকে মারধর করেছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। খুন হওয়ার আগেরদিন বুধবার আইয়ুব আলী শেখ গ্রামের বাড়ি যান কিন্তু তিনি রাত্রি যাপন করেন পাশের এক বাড়িতে। ঘটনার দিন সকালে আইয়ূব আলী শেখ স্থানীয় কাশিগঞ্জ বাজার থেকে চা খেয়ে বাড়িতে যান। এ সময় বাড়ির উঠানে দা নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা ছেলে এনামুল তার বাবার মাথায় আঘাত করে। পরে বৃদ্ধ বাবা মাটিতে লুটিয়ে পড়লে দা দিয়ে গলা কেটে হত্যা করে সে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর প্রতিবেশিরা তাদের বাড়িতে টিউবওয়েল থেকে পানি নিতে গেলে রক্তাক্ত অবস্থায় বৃদ্ধ আইয়ুব আলীকে পড়ে থাকতে দেখে। পরে থানায় খবর দিলে ত্রিশাল থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে। ঘটনার দিন রাতেই নিহতের বড় ছেলে খাইরুল ইসলাম বাদি হয়ে এনামুলকে আসামী করে ত্রিশাল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
ত্রিশাল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম জানান, সোমবার সন্ধ্যায় নেত্রকোনা শহর থেকে আসামীকে গ্রেফতার করে মঙ্গলবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Share.

Comments are closed.