Girl in a jacket

গাজীপুর বোর্ড বাজারের আড়াই শতাধিক ব্যবসায়ী এক আ’লীগ নেতার কাছে জিম্মি : থানায় জিডি

0

গাজীপুর প্রতিনিধিঃ-
গাজীপুর মহানগরির বোর্ড বাজার ব্যবসায়ীদের কাছে ১৯ টাকা ইউনিট দরে বিদ্যুৎ বিক্রি করেন স্থানীয় এক প্রভাবশালী আ’লীগ নেতা। তার নিজস্ব পানির পাম্প থেকে অতিরিক্ত মূল্যে পানি ও বরফের কারখানা থেকে বরফ কিনতেও ব্যবসায়ীদের বাধ্য করা হয়। ব্যবসায়ীদের একধরণের জিম্মি করে এভাবে মাসে প্রায় ১০ লাখ টাকা আদায় করা হয় বলে ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেছেন। প্রতিবাদ করলে ব্যবসায়ীদের ওপর অত্যাচারের খড়ক নেমে আসে। এতে অতিষ্ঠ ব্যবসায়ীরা ৩১ জানুয়ারী শনিবার জরুরী মিটিং আহŸান করায় দলবল নিয়ে বাজারে চড়াও হন ওই আ’লীগ নেতা। এ ঘটনায় বোর্ড বাজার ক্ষুদে ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক বদিউজ্জামান বকুল জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে শনিবার রাতে গাছা থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন। অভিযুক্ত আ’লীগ নেতা গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রপদে নির্বাচন করবেন বলেও এলাকায় ব্যাপক পোস্টারিং করেছেন।
ব্যবসায়ী নেতা বকুল জানান, বোর্ড বাজারের আড়াই শতাধিক ক্ষুদ্্র ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের মালিকদের নিয়ে তাদের সমিতি গঠিত। তারা আড়াই শতাধিক ব্যবসায়ী সাবেক গাছা ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহŸায়ক আ’লীগ নেতা রুবেল খান মণ্টুর কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন। রুবেল নিজস্ব বৈদ্যুতিক মিটার থেকে প্রত্যেক দোকানে বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে ব্যবসায়ীদের বাধ্য করে থাকেন। তার বাধার কারণে বাজারের ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে পৃথক বৈদ্যুতিক মিটার লাগাতে পারেন না। একইভাবে মণ্টুর পানির পাম্প থেকে ব্যবসায়ীদেরকে পানির সংযোগ এবং তার বরফের কারখানা থেকে মাছ বাজারে বরফ নিতে বাধ্য করা হয়। তিনি ব্যবসায়ীদের কাছে বিদ্যুৎ, পানি ও বরফ অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রয় করেন। ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ বিল বাবদ ১৯ টাকা করে আদায় করা হয়। পানি ও বরফের মূল্যও কয়েকগুণ নেয়া হয়। ব্যবসায়ীরা আপত্তি জানালে তাদের ওপর জুলুম নির্যাতন চালানো হয়। রুবেল খান মণ্টু দোকানীদের কাছ থেকে নিয়মিত বিদ্যুৎ বিল আদায় করে তা বিদুৎ অফিসে পরিশোধ না করায় এ পর্যন্ত চার লাখ টাকা বকেয়া জমেছে বলেও ব্যবসায়ী নেতা বকুল অভিযোগ করেন। বকেয়া বিলের কারণে বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ বাজারের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়। এসব বিষয়ে ব্যবসায়ীরা গত শনিবার দুপুরে সমিতির কার্যালয়ে জরুরি মিটিং আহŸান করে। মিটিং চলাকালে মণ্টু দলবল নিয়ে সমিতির কার্যালয়ে এসে চড়াও হন। এসময় কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মণ্টু ব্যবসায়ী নেতা বকুলকে মারধর করেন এবং জীবনে মেরে ফেলার হুমকি দেন। এ ঘটনায় শনিবার রাতে ব্যবসায়ী বকুল জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে গাছা থানায় সাধারণ ডায়েরী (নং- ১২৯৪) করেন। একই কারণে বিগত ২০১৫ সালে ব্যবসায়ীদের মিটিং চলাকালে হামলার ঘটনায় তখনো ব্যবসায়ীরা তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সভা ও থানায় জিডি (নং- ৩৪১) করেন।
এ ব্যাপারে রুবেল খান মণ্টুর সাথে তার মুঠো ফোনে যোগাযোগ করে বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিক পরিচয় পেয়েই রেগে যান এবং আলোচিত ঘটনার বিষয়ে বক্তব্য না দিয়ে উত্তেজিত ভাষায় অসৎ আচরণ করেন।
এদিকে এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে গাছা থানার ওসি ইসমাঈল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ব্যবসায়ীদের পক্ষে জিডি করার পর মণ্টুও শনিবার রাতে থানায় পাল্টা অভিযোগ দিয়ে গেছেন। উভয় পক্ষের অভিযোগ আমরা খতিয়ে দেখছি।

Share.

Comments are closed.