Girl in a jacket

গফরগাঁওয়ে ছাত্রদল ও যুবদলের দোয়া ও ইফতার মাহফিলে হামলার অভিযোগ

0

গফরগাঁও প্রতিনিধিঃ
গফরগাঁও পৌর শাখা ছাত্রদল ও পাগলা যুবদলের ইফতার মাহফিলে লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালিয়ে ইফতারি কেড়ে নেয়ার অভিযোগ করেছেন ছাত্রদল ও যুবদলের নেতাকর্মীরা।
ছাত্রদল ও যুবদলের স্থানীয় নেতাকর্মীরা অভিযোগ করে বলেন, পৌর ছাত্রদল ও পাগলা যুবদলের উদ্যোগে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খারেদা জিয়া রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া ও ইফতার মাহফিল দেয়। ২১ এপ্রিল বুধবার গফরগাঁও পৌর শাখা ছাত্রদল যোলহাসিয়া টাওয়ারের মোড় ও পাগলা যুবদল টাঙ্গাব ইউনিয়নে ছাপিলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ইফতারির আয়োজন চলছিল ইফতারি আগত মুসল্লিরা তাদের ইফতারি নিয়ে বসেছিলো এবং দোয়ার প্রস্তুতি নেয়ার সময় পাগলা থানা পুলিশ ও স্থানীয় ছাত্রলীগ দেশীয় লাঠি সোটা নিয়ে ইফতার মাহফিল পন্ড করে দেয় ও ইফতারি নিয়ে যায়। ঘটনাটি ঘটে বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে।
টাঙ্গাব ইউনিয়ন যুবদল নেতা জাহাঙ্গীর আলম জানান, বেগম খালেদা জিয়া রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া ও ইফতারি আয়োজন করে ছিলাম ছাপিলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে। পাগলা থানা পুলিশ দোয়া মাহফিরটি পন্ড করে দেয়। পুলিশ বিএনপি যুবদল নেতা কর্মীদের হুসিয়ার করে বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নাম ঠিকানা জানতে চায়। পরে টাঙ্গাব ইউনিয়ন বিএনপি সাবেক সাধারন সস্পাদক হাফেজ শাহ আলমের বাড়ি ঘরের দরজা জানালা ভাঙচুর করে পাগলা থানা পুলিশ। পুলিশের ভয়ে স্থানীয় নেতাকর্মী বাড়ি ঘর ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়। ছাপিলা গ্রামের আশপাশের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুরুয মহিলাদেরকে গালমন্দ করে শাসিয়ে যায় পুলিশ। অপরদিকে পৌর শাখা ছাএদলের আহবায়ক রবিউল আলম পাপ্পু জানায়, বাংলা টাওয়ারের মোড়ে বেগম খালেদা জিয়া রোগমুক্তি কামনায় দোয়া ও ইফতারি আয়োজন করা হয়েছিল, গফরগাঁও থানা পুলিশ বস্তায় ভরে ইফতারি নিয়ে যায়। আগত মুসল্লিদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।
গফরগাঁওয়ের কৃতিসন্তান ময়মনসিংহ (দক্ষিণ) জেলা বিএনপি যুগ্ন আহবায়ক ডাঃ মোফাখখারুল ইসলাম রানা বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া ও ইফতার মাহফিল পুলিশ পন্ড করে দেয়ায় আমি নেক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদ এবং নিন্দা জানাই।

স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতারা জানান, ছাত্রদল ও যুবদলের ইফতার মাহফিলে হামলার বিষয়টি তাদের জানা নেই।

পাগলা থানার ওসি রাশেদুজ্জামান জানান, যুবদল ইফতার মহিফিলের আয়োজন করছিলো কিন্তু পুলিশের উপস্থিতি জানতে পেরে তারা মাহফিল ছেড়ে চলে গেছে। হামলার বিষয়টি সঠিক নয়।

Share.

Comments are closed.